Super Deluxe (2019)

An unfaithful wife, an estranged father and an angry boy must all face their demons on one fateful day.

8.4

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on linkedin

Movie

Super Deluxe is a 2019 Indian Tamil-language drama thriller film co written, co produced and directed by Thiagarajan Kumararaja.

Super Deluxe (2019)

একটা ভারতীয় ইউটিউব চ্যানেলকে অনেকদিন ফলো করি যেটা বলিউড রিলেটেড ট্রিভিয়া প্লাস ইনসাইটস দিত। ইদানিং এরা মুভি রিভিউও করে এবং এমন অনেস্ট এবং বস্তুনিষ্ঠ রিভিউ খুব কম দেখা যায়। তো সেই চ্যানেলের মাধ্যমে Super Deluxe (2019) সিনেমাটির  খোঁজ পেয়ে গেলাম। সিনেমাটি পপুলার স্ট্রিমিং প্লাটফর্ম নেটফ্লিক্সে রিলিজ পায় এ বছরের ২৯ মার্চ। আমি দক্ষিণী সিনেমা খুবই কম দেখি, তবে অন্সম্বল কাস্ট এস্পেশালী সেতুপতি আর ফাহাদের মত গুণী দুজন অভিনেতা থাকায় দেখে ফেললাম চটজলদি।

সিনেমাটি এন্থোলজি জনরার হলেও হতে পারত। চারটি আলাদা আলাদা কাহিনী নিয়ে এগুতে থাকা প্রায় পৌনে তিন ঘন্টার এই ড্রামা থ্রিলার একটা ইমোশনাল রোলার কোস্টার। এই মুহুর্তে আপনি একটা ক্যারেকটারের দুঃখ উপলব্ধি করে কেঁদে ফেলছেন তো পরমুহুর্তে চরম স্যাটিস্ফাইং মুড লাইটনিং একটা মোমেন্ট উপহার দিবে। সেটা ইল্লজিকাল বা টিপিকাল সাউথ ভাঁড়ামি দিয়ে নয়, চমৎকার কিছু সামঞ্জস্যপূর্ণ দৃশ্য দিয়ে।

কাহিনীগুলি আলাদা হলেও সবকটিই একটা আরেকটার সাথে লুজলি বেজড। এজন্যই একে এন্থোলজি জনরার বলা যাবে না; কিন্তু একই সমান্তরালে চারটি কাহিনীকে এত চমৎকারভাবে কুমারারাজা যেভাবে উপস্থাপন করেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। পরিচালকের মুন্সিয়ানা আরো দর্শনীয় যখন একটা কাহিনী থেকে আরেকটা কাহিনীতে ট্রাঞ্জিশন করে। আচ্ছা বেশি ভুমিকা হয়ে গেছে, এখন কাহিনী সংক্ষেপ বলা যাক।

সিনেমা শুরু সামান্থার তাঁর এক্স বয়ফ্রেন্ডের সাথে ফোনে কথা বলা দিয়ে। সামান্থা ফাহাদের সাথে আনহ্যাপিলি ম্যারিড। সে তাঁর এক্স কে বাসায় আসতে বলে বাসা খালি থাকায়। সেখানে সেক্স চলাকালীন ছেলেটা হার্ট এটাকে মারা যায়, এর মধ্যে ফাহাদও বাসায় চলে আসে কয়েকজন অতিথিকে সাথে করে। ট্রমাটাইজড সামান্থা (ভেম্বু) আর প্রতারিত স্বামী ফাহাদের (মুগিল) এর পরের সংগ্রাম নিয়ে এগিয়ে চলে তাঁদের গল্প।

এরই মধ্যে শুরু হয় দ্বিতীয় গল্প। এখানে পাঁচ টিনেজার বন্ধু একজনের বাসা খালি থাকায় পর্ণ দেখতে যায়। পর্ণ দেখতে গিয়ে একটা আপাতদৃষ্টিতে বিশ্রী সত্যি আবিষ্কার করে একজন। রাগে সে বন্ধুর টিভি ভেঙে ফেলে উর্ধ্বশ্বাস দৌড়ায় খুন করতে। এখানে এই গল্পটা ভাগ হয়ে যায় দুইভাগে। একভাগে খুন করার ভূত সওয়ার হওয়া বন্ধুটির পেছনে দৌড়ায় তাঁর আরেক বন্ধু। আরেকদিকে ভাঙা টিভি নিয়ে সন্ত্রস্ত বাড়ির মালিক বন্ধুটি বাকি দুজনের সাথে মিলে নতুন টিভি কেনার ছক কষতে গিয়ে অপরাধে জড়িয়ে পড়ে।

তৃতীয় (চতুর্থ) গল্পটা হতভাগ্য বাবার (সেতুপতি)। দীর্ঘদিন পরিবার ছেড়ে দূরে থাকার পর সে যখন ট্রান্সজেন্ডার মহিলা হয়ে বাড়ি ফেরে তখন সারা বাড়ি হুলস্থুল পড়ে যায়, শুধু খুশির অন্ত থাকে না তাঁর পাঁচ বছর বয়সী ছেলের যে তাঁর জন্মের পর থেকে বাবার দেখা পায় নি। সমাজে প্রতি পদক্ষেপে একজন ট্রান্সজেন্ডার হবার কারণে তাঁকে নানানভাবে হেনস্থা হতে। আমার ব্যক্তিগতভাবে এই গল্পটা খুবই ভাল লেগেছে, বিশেষ করে ছেলের চরিত্রে অভিনয় করা বাচ্চাটাকে। বাচ্চারা যে নন জাজমেন্টাল এবং তাঁদের আচার আচরণ পারিপার্শ্বিকতা দ্বারা কতটা প্রভাবিত হয়, সেটা এই গল্পে ক্লিয়ারলি এভিডেন্ট।

সিনেমার এস্থেটিক্স তেমন বুঝি না, তবে রিভিউয়ার সিনেমাটোগ্রাফির ভূয়সী প্রশংসা করেছিল। প্রত্যেকটা দৃশ্যে ফ্রেমিং আর চরিত্রগুলোর পজিশনিং দেখলে চোখ আসলেই জুড়িয়ে যায়; এজন্য বোদ্ধা হবার প্রয়োজন পড়বে না। আরেকটা ভাল দিক হল, সিনেমার মেসেজ। প্রতিটা গল্পে আমাদের অন্ধবিশ্বাস আর সামাজিক ট্যাবুগুলিকে প্রশ্নের সম্মুখীন করা হয়েছে। যেমন, সামান্থা ফাহাদের কাহিনীতে ভারতের কাস্ট সিস্টেম; দ্বিতীয় গল্পে অন্ধ ধর্মবিশ্বাস, সেক্স এডুকেশন আর শেষ গল্পে এলজিবিটিদের নিয়ে আমাদের মধ্যে যে নিচু ধারণা সেটি উঠে এসেছে। তবে আমার কাছে সবচেয়ে ভাল মনে হয়েছে সিনেমার সংলাপ। সিনেমার সংলাপগুলি এত বুদ্ধিদীপ্ত আর সাটল যে চরম সিরিয়াস মুহুর্তেও হেসে ফেলবেন। কমিক রিলিফের জন্য প্রাসঙ্গিক কথোপকথনকে এমনভাবে তৈরী করা হয়েছে যে, কমিক রিলিফের জন্য ভাঁড়ামি অথবা ধার করা সাবপ্লটের দরকার পড়ে না। সিনেমার প্রগ্রেস হয় স্মুথ আর এনগেজিং।

সাউথের ছবি বলতেই আমরা লজিক ডিফাইং একশন আর নায়কনির্ভর ডেপথহীন কাহিনীর সিনেমাকেই বুঝে থাকি। সেদিক দিয়ে তামিল ইন্ডাস্ট্রি ভিন্ন কাহিনীর সিনেমা করছে বলে ভালই লাগল। গতবছর বিক্রম বেধা দেখে বিমোহিত হয়েছিলাম, এবার দেখলাম সুপার ডিলাক্স। এই সিনেমার নির্মাতা নাকি এই আট বছর বিরতির পর একটা সিনেমা করলেন। সিনেমা যদি এমন হয় আরো আট বছর অপেক্ষা করতে অসুবিধা নেই।

পুনশ্চঃ গল্প বলায় আমি পারদর্শী নই। তাই রিভিউ পড়ে দেখার আগ্রহ না পেতেই পারেন। তবে সবশেষে যে রিমার্কটা তা চোখ কপালে তুললেও একটু মিলিয়ে নিবেন প্লিজ। সিনেমাটি বেস্ট ফরেন ফিল্ম ক্যাটাগরিতে অস্কার পাবার যোগ্য। এক সিনেমায় এত গুলি ট্যাবু তুলে ধরা আর ঘুণে খাওয়া সমাজব্যবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করার সাথে সাথে সিনেমাকে এন্টারটেইনিং করে তোলা অসাধারণ এক্সিকিউশনের পরিচায়ক। সেই সাথে সিনেমার কাস্টের অসাধারণ পারফরমেন্স এটিকে করে তুলেছে আরো ইউনিক।

লিখেছেন মাহমুদুর রহমান

মুভিটির ডাউনলোড লিংক নিচে দেওয়া আছে। চাইলে দেখে নিতে পারেন অসাধারণ মুভিটি।

যেভাবে টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করবেন।

অন্যান্য মুভির জন্য ভিজিট করুন এই লিংকে। 

Super Deluxe (2019)

Country: India

Director: Thiagarajan Kumararaja

Writter: Thiagarajan Kumararaja

Actors: Vijay Sethupathi, Fahadh Faasil, Samantha Akkineni, Gayathrie, Ramya Krishnan, Mysskin, Bagavathi Perumal

Award: Nill

Duration: 176 minutes